top of page

পাপমোচনী একাদশীর মাহাত্ম্য

যুধিষ্ঠির শ্রীকৃষ্ণকে বললেন ----হে জনার্দন! চৈএ মাসের কৃষ্ণপক্ষের একাদশীর নাম ও মাহাত্ম্য কৃপা করে আমাকে বলুন।শ্রীকৃষ্ণ বললেন —হে ধর্মরাজ যুধিষ্ঠির! আপনি ধর্মবিষয়ক প্রশ্ন করেছেন।

এই একাদশী সকল সুখের আধার, সিদ্বি প্রদানকারী ও পরম মঙ্গলময়। সমস্ত পাপ থেকে নিস্তার বা মোচন করে বলে এই পবিত্র একাদশী তিথি ‘পাপমোচনী’ নামে প্রসিদ্ধ। রাজা মান্ধাতা একবার লোমশ মুনিকে এই কথা জিজ্ঞাসা করেছিলেন।


তার বর্নিত সেই বিচিএ উপাখ্যানটি আপনার কাছে বলছি। আপনি মনোযোগ দিয়ে তা শ্রবন করুন।প্রাচীনকালে অতি মনোরম ‘চৈএরথ’ পুষ্প উদ্যান মুনিগন বহু বছর ধরে তপস্যা করতেন। একসময় মেধাবী নামে এক ঋষিকুমার সেখানে তপস্যা করছিলেন। মঞ্জুঘোষা নামে এক সুন্দরী অস্পরা তাঁকে বশীভূত করতে চাইল। কিন্তুু ঋষির অভিশাপের ভয়ে সে আশ্রমের দুই মাইল দূরে অবস্থান করতে লাগল । বীনা বাজিয়ে মধুর স্বরে সে গান করত । এক দিন মঞ্জুঘোষা মেধাবীকে দেখে কামবাণে পীড়িতা হয়ে পড়ে। এদিকে ঋষি মেধাবীও অস্পরার অনুপম সৌন্দর্য দেখে মুগ্ধ হন। তখন সেই অস্পরা মুনিকে নানা হাব-ভাব ও কটাক্ষ দ্বারা বশীভূত করে। ক্রমে কামপরবশ মুনি সাধন-ভজন বিসর্জন দিয়ে তার আরাধ্য দেবকে বিস্মৃত হন।


এইভাবে অস্পরার সাথে কামক্রীড়ায় মুনির বহু বছর অতিক্রান্ত হল।মুনিকে আচার-ভ্রষ্ট দেখে সেই অস্পরা দেবলোকে ফিরে যেতে মনস্থ করল।একদিন মঞ্জুঘোষা মেধাবী মুনিকে বলতে লাগল—হে প্রভু, এখন আমাকে নিজ গৃহে ফিরে যাবার অনুমতি প্রধান করুন। কিন্তুু মেধাবী বললেন —হে সুন্দরী! তুমি তো এখন সন্ধ্যাকালে আমার কাছে এসেছ,প্রাতঃকাল পর্যন্ত আমার কাছে থেকে যাও মুনির কথা শুনে অভিশাপ ভয়ে সেই অস্পরা আরও কয়েক বছর তার সাথে বাস করল।এইভাবে বহুবছর (৫৫ বছর ৯ মাস ৭ দিন)অতিবাহিত হল।দীর্ঘককাল অস্পরার সহবাসে থাকলেও মেধাবীর কাছে তা অর্ধরাত্রি বলে মনে হল।মঞ্জুঘোষা পুনরায় নিজস্থানে গমনের প্রার্থনা জানালে মুনি বললেন —এখন প্রাতঃকাল, যতক্ষণ পর্যন্ত আমি সন্ধ্যাবন্দনা না সমাপ্ত করি, ততক্ষণ পর্যন্ত তুমি এখানে থাক।


মুনির কথা শুনে ঈষৎ হেসে মঞ্জুঘোষা তাকে বলল—হে মুনিবর! আমার সহবাসে আপনার যে কত বৎসর অতিবাহিত হয়ছে, তা এক বার বিচার করে দেখুন। এই কথা শুনে মুনি স্থির হয়ে চিন্তা করে দেখলেন যে তাঁর ছাপ্পান্ন বৎছর অতিবাহিত হয়ে গেছে। মুনি তখন মঞ্জুঘোষার প্রতি ক্রোধ পরবশ হয়ে বললেন --রে পাপীষ্ঠে, দুরাচারিণী, তপস্যার ক্ষয়কারিনী,তোমাকে ধিক্! তুমি পিশাচী হও। মেধাবীর শাপে অস্পরার শরীর বিরূপ প্রাপ্ত হল।


তখন সে অবনতমস্তকে মুনির কাছে শাপমোচনের উপায় জিঞ্জাসা করল। মেধাবী বলেলেন —হে সুন্দরী! চৈএ মাসের কৃষ্ণপক্ষীয়া পাপমোচনী একাদশী,সর্বপাপ ক্ষয়কারিনী। সেই ব্রত পালনে তোমার পিশাচত্ব দূর হবে।পিতার আশ্রমে ফিরে গিয়ে মেধাবী বলেলেন —হে পিতা! এক অস্পরার সঙ্গদোষে আমি মহাপাপ করেছি, এর প্রায়শ্চিত্ত কি? তা কৃপা করে আমায় বলুন।

উওরে চ্যবন মুনি বললেন —চৈএ মাসের কৃষ্ণপক্ষীয় পাপমোচনী একাদশী ব্রতের প্রভাবে তোমার পাপ দূর হবে।পিতার উপদেশ শুনে মেধাবী সেই ব্রত ভক্তিভরে পালন করল।তার সমস্ত পাপ দূর হল।পুনরায় তিনি তপস্যার ফল লাভ করলেন। মঞ্জুঘোষাও ঐব্রত পালনের ফলে পিশাচত্ব থেকে মুক্ত হয়ে দিব্য দেহে স্বর্গে গমন করল।হে মহারাজ! যারা এই পাপমোচনী একাদশী পালন করেন, তাদের পূর্বকৃত সমস্ত পাপই ক্ষয় হয়।এই ব্রতকথা পাঠ ও শ্রবণে সহস্র গো-দানের ফল লাভ হয়।

572 views0 comments

Recent Posts

See All

পদ্মিনি একাদশী মাহাত্ম্য

স্মার্তগণ পুরুষোত্তম মাস বা অধিমাসকে ‘মলমাস’ বলে এই মাসে সমস্ত শুভকার্য পরিত্যাগ করে থাকেন। কিন্তু ভগবান শ্রীকৃষ্ণ এই মাসকে পারমার্থিক মঙ্গলের জন্য অন্য সকল মাস থেকে সর্বশ্রেষ্ঠ বলে নির্ণয় করেছেন। তিন

জয়পতাকা স্বামী মহারাজের জীবনী

ওঁ বিষ্ণুপাদ পরমহংস পরিব্রাজকাচার্য অষ্টোত্তরশত শ্রীশ্রীমৎ জয়পতাকা স্বামী ১৯৪৯ খ্রীষ্টাব্দের ৯ই এপ্রিল আমেরিকা যুক্তরাষ্ট্রের উইসকন্সিন প্রদেশের মিলৌকি শহরে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি যে দিনটিতে জন্মগ্রহণ ক

Comentarios


bottom of page